হোম রাজনীতি এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবে না বিএনপি : ফখরুল

এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবে না বিএনপি : ফখরুল

কর্তৃক স্টাফ রিপোর্টার
17 ভিউস

এই সরকারের অধীনে বিএনপি কোনো নির্বাচনে যাবে না বলে মন্তব্য করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ শনিবার সিলেটে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ‘সিলেট মুক্ত দিবস’উপলক্ষে আয়োজিত স্থানীয় বিএনপির সমাবেশে এ কথা বলেন তিনি। মির্জা ফখরুল বলেন, ‘নির্বাচন নির্বাচন খেলায় বিএনপি অংশ নেবে না। নির্বাচন করতে হলে বর্তমান সরকারকে পদত্যাগ করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে।’

১৫ ডিসেম্বর সিলেট পাক হানাদার বাহিনীর হাত থেকে মুক্ত হওয়া উপলক্ষে এই সমাবেশের আয়োজন করে বিএনপি। সমাবেশে সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে আরও বক্তব্য দেন- বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য

টাকা দরে চাল কিনতে বাধ্য করছে। দেশের সবখানে দুর্নীতি, নিত্যপণ্যের মূল্য সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে। বর্হিবিশ্বের আমাদের সুনাম নষ্ট হচ্ছে। মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে দেশের আইনশৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের বিভিন্ন দেশ প্রবেশ নিষিদ্ধ করে দেখিয়ে দিচ্ছে এই সরকার দমন পীড়নের সরকার। এই সরকার উৎখাত করতে হবে।’

আজ রোববার (২৪ অক্টোবর) সকালে সিলেট ও সুনামগঞ্জ সফরকালে হজরত শাহজালাল (র.)-এর মাজার জিয়ারত শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

 

এর আগে সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে হজরত শাহপরান (র.)-এর মাজার জিয়ারত করেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। মাজার জিয়ারত শেষে বিএনপি মহাসচিব সাবেক সংসদ সদস্য ফজলুল হক আছপিয়ার স্মরণসভায় যোগ দিতে সুনামগঞ্জের উদ্দেশে রওনা দেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, দেশে নির্বাচনের কোনো পরিস্থিতি নেই। আওয়ামী লীগ সরকার জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়নি। অনির্বাচিত ও অবৈধ এই সরকার নির্বাচন নিয়ে খেলা করে গত দুই মেয়াদ ক্ষমতায় আছে। যখন নির্বাচনের সত্যিকার পরিবেশ তৈরি হবে, আমরা তখনই নির্বাচনে অংশ নেব।

তিনি বলেন, আমরা পরিষ্কারভাবে বলেছি, আওয়ামী লীগের অধীনে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়। যে কারণে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার ও নির্দলীয় একটি সরকার এবং সেই সরকারের অধীনে নতুন নির্বাচন কমিশন থাকলে আমরা অবশ্যই অংশ নেব।

তিনি বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে দেশে হিন্দুদের বাড়িঘরে যে হামলা হচ্ছে, তার সঙ্গে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা জড়িত। দেশের জনগণের বর্তমানে কোনো নিরাপত্তা নেই। দেশ পরিচালনায় ব্যর্থ এই

 

আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে বিএনপি দলীয়ভাবে কোনো নির্বাচনে অংশ নেবে না বলে জানিয়েছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ শুক্রবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

ফখরুল বলেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে এখন পর্যন্ত কোনো সিদ্ধান্ত বা দলীয় আলোচনা হয়নি। তবে বিএনপি বর্তমান সরকারের অধীনে দলীয়ভাবে কোনো নির্বাচনেই অংশ নিবে না। কারণ বর্তমান সরকার জবরদস্তিমূলক দখলদার সরকার। এ সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব না। বর্তমান সরকার সব নির্বাচন তাদের মতো করে পরিচালনা করেছে। নির্বাচন কমিশনকে নিয়ন্ত্রণ রেখে একটি তোষণমূলক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করেছে।

তিনি বলেন, সরকার অদৃশ্য শক্তির সহায়তায় আগের রাতে ভোটবাকশো ভরে ক্ষমতা দখল করে বসে আছে। যে কারণে দেশে-বিদেশে নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হয়নি। শুধুমাত্র গ্রহণযোগ্য নির্বাচন কমিশন ও নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব। সে কারণেই আমরা আন্দোলন করে যাচ্ছি। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দূরে থেকেও নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তার নেতৃত্বে বিএনপি আগের চেয়ে অনেক বেশি সুসংগঠিত হয়েছে।

এদিন দুপুরে বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সহসম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদের বাবা মোস্তাফিজুর রহমানের কুলখানির অনুষ্ঠানে অংশ নেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতারা।

 

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘সরকার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করছে। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী অনুষ্ঠানে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের নাম উচ্চারণ করা হয়নি, তাজউদ্দিন আহমদের কথা উচ্চারণ করা হয়নি, এমন কি মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক জেনারেল এমএজি ওসমানীকে আড়ালে রেখেছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

এ সময় তিনি আরও বলেন, ‘১৬ ডিসেম্বর জাতীয়ভাবে যে সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করা হয়েছে সেখানে শেখ মুজিব ছাড়া আর কারো নাম নেওয়া হয়নি। ১৯৭১ সালের ১৫ ডিসেম্বর সিলেট শত্রুমুক্ত করতে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান। কিন্তু জোর করে ক্ষমতায় থাকা এ সরকার প্রকৃত ইতিহাস মুছে দিয়ে একটি ভ্রান্ত গল্প নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে চায়।’

 

নেতাকর্মীদের উদ্দেশে গণঅভ্যূত্থানের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘১০ টাকার চাল খাওয়ানোর কথা বলে ক্ষমতায় আসা সরকার ৭০

খন্দকার মোশাররফ হোসেন। মুক্তিযুদ্ধের সময়ে সিলেট অঞ্চলের বিভিন্ন ঘটনার স্মৃতিচারণ করেন দলটির জাতীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অবঃ) হাফিজ উদ্দিন আহমদ বীর বিক্রম।

 

০ মন্তব্য
0

সম্পর্কিত পোস্ট

মতামত দিন