তালাবন্ধ ঘরে হাত-পা বাঁধা শিশুর লাশ উদ্ধার

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ৫ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের পর হাত-পা বেঁধে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলার সাতগ্রাম ইউনিয়নের পুরিন্দা বড়বাড়ি থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা থেকে ওই শিশুটিকে না পেয়ে পরিবারের লোকজনসহ স্থানীয়রা খোঁজ করতে শুরু করেন। বিকালে ওই এলাকার নান্নু মিয়ার বাড়ির সামাদ নামের এক ভাড়াটিয়ার ঘর দীর্ঘক্ষণ তালাবন্ধ অবস্থায় দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা সন্দেহ করেন।

পরে তালা ভেঙে ওই ঘরে প্রবেশ করলে সেখানে শিশুটির লাশ দেখতে পান সবাই। এ সময় পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করে।

স্থানীয়রা জানান, পুরিন্দা গ্রামের নান্নু মিয়ার বাড়িতে সামাদ নামের এক ব্যক্তি কয়েক মাস ধরে ভাড়া থাকতেন। তার সাথে ৩-৪ জন লোক সব সময় আসা-যাওয়া করতো। এ সময় স্থানীয়রা ৩ জনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন। তারা হলেন- উপজেলার আশুয়াট গ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে সোহেল (৩০), কচুয়া থানার রঘুনাথপুর গ্রামের আলী আশরাফের ছেলে সামাদ (৩৫) ও পলাশ থানার কবিরাজপুর গ্রামের নাসির উদ্দিনের ছেলে শিমুল (৩২)।

ঘটনাস্থলে যাওয়া আড়াইহাজার থানার এসআই সালেহ আহমেদ জানান, লাশ ময়নাতদন্ত করার জন্য নারায়ণগঞ্জ সদর জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। জনতা যে ৩ জনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছেন তাদের প্রাথমিকভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

আড়াইহাজার থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জোবায়ের হোসেন জানান, এ ব্যাপারে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

ধর্ষণের কোনো আলামত আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ময়নাতদন্তের পর বিস্তারিত বলা যাবে।

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here