হোম বাংলাদেশ বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, ঘুষ নিয়ে নারীকে তুলে দেওয়া হলো উত্তরবঙ্গের গাড়িতে

বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, ঘুষ নিয়ে নারীকে তুলে দেওয়া হলো উত্তরবঙ্গের গাড়িতে

কর্তৃক স্টাফ রিপোর্টার
19 ভিউস

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার চন্দ্রা এলাকায় বিয়ের প্রলোভনে নারী কর্মচারীকে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে এক হোটেল মালিকের বিরুদ্ধে। ওই ঘটনায় থানায় অভিযোগ দিলেও এক পুলিশ কর্মকর্তা বিবাদীর কাছ থেকে টাকা পেয়ে ওই নারীকে তাড়িয়ে দিয়েছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। ধর্ষণকারী হলেন কালিয়াকৈর উপজেলার সাদুল্লাহপুর এলাকার সুবল চন্দ্র ঘোষ।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, কালিয়াকৈর উপজেলার চন্দ্রা এলাকায় সকাল-সন্ধ্যা নামে একটি খাবার হোটেল দিয়ে সুবল চন্দ্র ঘোষ দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছেন। তিনি বিয়ের প্রলোভনে তার হোটেলের এক নারী কর্মচারীকে আট মাস ধরে বিভিন্ন সময় ধর্ষণ করে আসছেন বলে জানা গেছে। ১০-১২ দিন আগে ওই হোটেল মালিক সুবল তার নারী কর্মচারীকে বিয়ে করবে না বলে জানিয়ে দেয়। এ ঘটনায় ওই নারী কর্মচারী বাদী হয়ে গত ৪ ডিসেম্বর কালিয়াকৈর থানায় অভিযোগ করেন। এরপর ধর্ষণের শিকার নারী ওই হোটেলে গিয়ে অনশন করলে হোটেল মালিকসহ তার অন্য কর্মচারীরা তাকে মারধর করে।

এদিকে ওই নারীর অভিযোগ পেয়ে কালিয়াকৈর থানার এসআই শফিকুল ইসলাম ঘটনাস্থলে তদন্তে যান। কিন্তু ওই পুলিশ কর্মকর্তা হোটেল মালিক সুবলের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেননি। উলটো তার কাছ থেকে টাকা নিয়ে ওই পুলিশ কর্মকর্তা হোটেলে অনশনরত নারীকে হুমকি-ধমকি দেন। শুধু তাই নয়, তাকে জোরপূর্বক উত্তরবঙ্গের একটি গাড়িতেও তুলে দেন বলে ওই নারী জানিয়েছেন।

অভিযুক্ত হোটেল মালিক সুবল চন্দ্র ঘোষ জানান, ওই পুলিশ ও ওই নারীসহ ৭০ হাজার টাকায় মিট করেছি।

কালিয়াকৈর থানার এসআই শফিকুল ইসলাম টাকা নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে জানান, বাদী নিজেই তার অভিযোগটি প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। ধর্ষণের অভিযোগ তিনি কীভাবে প্রত্যাহার করলেন? জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে ওই বাদীর সঙ্গে কথা বলতে বলেন।

০ মন্তব্য
0

সম্পর্কিত পোস্ট

মতামত দিন