হোম জাতীয় মালয়েশিয়া যেতে যেসব সুবিধা পাবেন বাংলাদেশি কর্মীরা

মালয়েশিয়া যেতে যেসব সুবিধা পাবেন বাংলাদেশি কর্মীরা

কর্তৃক স্টাফ রিপোর্টার
20 ভিউস

বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ার মধ্যে শ্রমবাজার নিয়ে সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সম্পন্ন হয়েছে। স্মারকটিতে বাংলাদেশের কর্মীদের জন্য বেশ কিছু সুযোগ-সুবিধার কথা উল্লেখ রয়েছে।

বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ার মধ্যে শ্রমবাজার নিয়ে সমঝোতা চুক্তি (এমওইউ) সম্পন্ন হয়েছে। রোববার (১৯ ডিসেম্বর) মালয়েশিয়ার পক্ষে দেশটির মানবসম্পদমন্ত্রী দাতুক সেরি এম সারাভানান এবং বাংলাদেশের পক্ষে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ চুক্তিতে সই করেন।

এই চুক্তির ফলে প্রায় তিন বছর বন্ধ থাকার পর ফের উন্মুক্ত হতে যাচ্ছে মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার।

এর আগে এই সমঝোতা চুক্তি সই করতে আজ ভোর ৫টায় মালয়েশিয়ায় পৌঁছান প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ।

দীর্ঘ তিন বছর বন্ধ থাকার পর গত ১০ ডিসেম্বর বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিতে অনুমোদন দেয় মালয়েশিয়া। দেশটির সব সেক্টরে কর্মী নেওয়ার অনুমোদন দেয় মালয়েশিয়ার মন্ত্রিপরিষদ। বিশেষ করে গৃহকর্মী, বাগান, কৃষি, উৎপাদন, পরিষেবা, খনি ও খনন এবং নির্মাণ খাতে বাংলাদেশি কর্মী নেবে দেশটি।

কূটনৈতিক সূত্র বলছে, মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার খোলার চেষ্টা বারবার ব্যাহত করেছে ১০টি রিক্রুটিং এজেন্সি। তাদের তৈরি সিন্ডিকেটের অবৈধভাবে এ বাজার

রোববার (১৯ ডিসেম্বর) বেলা ১১টায় দেশটির পক্ষে মানবসম্পদমন্ত্রী এম সারাভানান এবং বাংলাদেশের পক্ষে প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ স্মারকে সই করেন।

 

আমরা (পিআইকেএম) তাদের ট্রেনিং স্কুল দেখতে গিয়েছিলাম, আমরা দেখেছিলাম যে তারা কীভাবে তিন মাস প্রশিক্ষণ পেয়েছে, আমরা অনুভব করেছি যে তারাই সেরা বিকল্প।

আমরা যে সর্বশেষ এমওইউ স্বাক্ষর করেছি তা শেষ হয়ে গেছে, তাই শুক্রবার আমরা বিদেশি কর্মী (সিকিউরিটি) আনার সাম্প্রতিক শর্তগুলো পুনর্নবীকরণ করেছি, যা সরকারের অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে।

তিনি বলেছেন, পিআইকেএম সরকারকে অনুমোদনগুলো ত্বরান্বিত করার আহ্বান জানিয়েছে কারণ গত বছর কোভিড-১৯ মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে সিকিউরিটি গার্ড নিজে দেশে ফিরে যাওয়ার কারণে এখন ঘাটতি রয়েছে। নেপালি নিরাপত্তা রক্ষীদের যাদের মালয়েশিয়ায় ১০ বছর পর্যন্ত কাজ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে, তাদের মধ্যে অনেকেই মেয়াদ শেষে বাড়িতে ফিরে গেছে এবং সমস্ত অভিবাসী শ্রমিকদের নতুন নিয়োগের ওপর স্থগিতাদেশ থাকায় ঘাটতি দেখা দিয়েছে এবং আরও খারাপ হয়েছে।

 

 

দীর্ঘ তিন বছর বন্ধ থাকার পর গত ১০ ডিসেম্বর বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিতে অনুমোদন দেয় মালয়েশিয়া। দেশটির সব সেক্টরে কর্মী নেওয়ার অনুমোদন দেয় মালয়েশিয়ার মন্ত্রিপরিষদ। বিশেষ করে গৃহকর্মী, বাগান, কৃষি, উৎপাদন, পরিষেবা, খনি ও খনন এবং নির্মাণ খাতে বাংলাদেশি কর্মী নেবে দেশটি।

কূটনৈতিক সূত্র বলছে, মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার খোলার চেষ্টা বারবার ব্যাহত করেছে ১০টি রিক্রুটিং এজেন্সি। তাদের তৈরি সিন্ডিকেটের অবৈধভাবে এ বাজার

এই স্মারকের মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে ফের কর্মী যাবে মালয়েশিয়ায়। ফলে প্রায় তিন বছর পর মালয়েশিয়ার শ্রমবাজারে ঢুকবেন বাংলাদেশিরা।

সমঝোতা স্মারকের আওতায় বাংলাদেশি কর্মীদের মালয়েশিয়া প্রান্তের সব খরচ নিয়োগকর্তা বহন করবেন। যেমন- রিক্রুটমেন্ট এজেন্সি নিয়োগ, মালয়েশিয়ায় নিয়ে যাওয়া, তাদের আবাসন, কর্মে নিয়োজিত করা এবং কর্মীর নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর খরচ বহন করবেন।

আমরা (পিআইকেএম) তাদের ট্রেনিং স্কুল দেখতে গিয়েছিলাম, আমরা দেখেছিলাম যে তারা কীভাবে তিন মাস প্রশিক্ষণ পেয়েছে, আমরা অনুভব করেছি যে তারাই সেরা বিকল্প।

আমরা যে সর্বশেষ এমওইউ স্বাক্ষর করেছি তা শেষ হয়ে গেছে, তাই শুক্রবার আমরা বিদেশি কর্মী (সিকিউরিটি) আনার সাম্প্রতিক শর্তগুলো পুনর্নবীকরণ করেছি, যা সরকারের অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে।

তিনি বলেছেন, পিআইকেএম সরকারকে অনুমোদনগুলো ত্বরান্বিত করার আহ্বান জানিয়েছে কারণ গত বছর কোভিড-১৯ মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে সিকিউরিটি গার্ড নিজে দেশে ফিরে যাওয়ার কারণে এখন ঘাটতি রয়েছে। নেপালি নিরাপত্তা রক্ষীদের যাদের মালয়েশিয়ায় ১০ বছর পর্যন্ত কাজ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে, তাদের মধ্যে অনেকেই মেয়াদ শেষে বাড়িতে ফিরে গেছে এবং সমস্ত অভিবাসী শ্রমিকদের নতুন নিয়োগের ওপর স্থগিতাদেশ থাকায় ঘাটতি দেখা দিয়েছে এবং আরও খারাপ হয়েছে।

 

 

দখলের চেষ্টায় ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর থেকে এটি বন্ধ হয়ে যায়। ওই সময় মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক বিশেষ কমিটির বৈঠকে ১ সেপ্টেম্বর থেকে বাংলাদেশের শ্রমিক নিয়োগ বন্ধ করে দেয় দেশটি।

 

বাংলাদেশের শ্রম নিয়োজনে মালয়েশিয়ায় হতে যাচ্ছে আরেকটি নতুন সংযোজন। সিকিউরিটি ইন্ডাস্ট্রি অ্যাসোসিয়েশন (পিআইকেএম) বিদেশি নিরাপত্তারক্ষী সংগ্রহের জন্য দ্বিতীয় উৎস দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে চিহ্নিত করেছে।

এ লক্ষ্যে শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) কুয়ালালামপুরস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনে পিআইকেএম এবং বাংলাদেশের সেনাকল্যাণ সংস্থার সঙ্গে একটি কৌশলগত চুক্তি স্বাক্ষর

 

এছাড়া নিয়োগকর্তা নিজ খরচে মালয়েশিয়ান রিক্রুটিং এজেন্ট নিযুক্ত করতে পারবেন। মালয়েশিয়ায় আসার পর বাংলাদেশি কর্মীর ইমিগ্রেশন ফি, ভিসা ফি, স্বাস্থ্য পরীক্ষার খরচ, ইন্স্যুরেন্স সংক্রান্ত খরচ, করোনা পরীক্ষার খরচ, কোয়ারেন্টাইন–সংক্রান্ত খরচসহ সব ব্যয় মালয়েশিয়ার নিয়োগকর্তা বা কোম্পানি বহন করবে। নিয়োগকর্তা কর্মীর মানসম্মত আবাসন, বিমা, চিকিৎসা ও কল্যাণ নিশ্চিত করবেন।

 

দখলের চেষ্টায় ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর থেকে এটি বন্ধ হয়ে যায়। ওই সময় মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক বিশেষ কমিটির বৈঠকে ১ সেপ্টেম্বর থেকে বাংলাদেশের শ্রমিক নিয়োগ বন্ধ করে দেয় দেশটি।

মালয়েশিয়া যেতে যেসব সুবিধা পাবেন বাংলাদেশি কর্মীরা

 

মালয়েশিয়ার স্থানীয় একটি সংবাদ সংস্থাকে পিআইকেএম সভাপতি রামলি ইউসুফ বলেন, সেনাকল্যাণ সংস্থা বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর একটি প্রতিষ্ঠান। মালয়েশিয়া এবং অন্যান্য দেশে ভবিষ্যত নিরাপত্তা রক্ষী পাঠানোর লক্ষ্যে চিহ্নিতকরণ এবং প্রশিক্ষণের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করবে।

তিনি বলেন, ২০১৮ সালে প্রথম স্বাক্ষরিত চুক্তির মেয়াদ শেষে আবার নবায়ন করা হয়েছে। মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্প্রতি বাংলাদেশ, ফিলিপাইন এবং ইন্দোনেশিয়া থেকে সিকিউরিটি গার্ড নিয়োগের বিষয়টি বিবেচনা করছে।

রামলি বলেন, পিকেআইএম থেকে শুধুমাত্র বাংলাদেশের সুপারিশ করেছি কারণ আমরা সেখানে ২০১৮ সালে প্রথম গিয়েছিলাম। সেই সময়ে, আমরা তাদের সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষর করেছি।

 

 

হয়েছে। দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. গোলাম সারোয়ারের প্রত্যক্ষদর্শীতে স্বাক্ষর অনুষ্ঠানটি ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- দূতাবাসের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা কমডোর মোস্তাক আহমেদ। সেনা কল্যাণ সংস্থার একটি অঙ্গ-প্রতিষ্ঠান রিক্রুটিং এজেন্সির লাইসেন্স প্রাপ্ত হয়েছে যা বিদেশে শ্রম নিযুক্ত করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ন অবদান রাখতে পারবে বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশের শ্রম নিয়োজনে মালয়েশিয়ায় হতে যাচ্ছে আরেকটি নতুন সংযোজন। সিকিউরিটি ইন্ডাস্ট্রি অ্যাসোসিয়েশন (পিআইকেএম) বিদেশি নিরাপত্তারক্ষী সংগ্রহের জন্য দ্বিতীয় উৎস দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে চিহ্নিত করেছে।

এ লক্ষ্যে শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) কুয়ালালামপুরস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনে পিআইকেএম এবং বাংলাদেশের সেনাকল্যাণ সংস্থার সঙ্গে একটি কৌশলগত চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। দেশটিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. গোলাম সারোয়ারের প্রত্যক্ষদর্শীতে স্বাক্ষর অনুষ্ঠানটি ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- দূতাবাসের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা কমডোর মোস্তাক আহমেদ। সেনা কল্যাণ সংস্থার একটি অঙ্গ-প্রতিষ্ঠান রিক্রুটিং এজেন্সির লাইসেন্স প্রাপ্ত হয়েছে যা বিদেশে শ্রম নিযুক্ত করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ন অবদান রাখতে পারবে বলে জানা গেছে।

 

০ মন্তব্য
0

সম্পর্কিত পোস্ট

মতামত দিন