তালেবান ছাঁটাই করার পরও কাজে আসছেন কাবুলের সাবেক মেয়র

দাউদ সুলতানজয়কে (৬৬) আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের মেয়র হিসেবে নিয়োগ দিয়েছিলেন ক্ষমতাচ্যুত আশরাফ গনি সরকার। তালেবান ক্ষমতা দখলের পর দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় তাকে। কাবুলের মেয়র হিসেবে হামদুল্লাহ নোমানীকে নিয়োগ দেয় তালেবান। কিন্তু এরপরও নিয়মিত কাজে আসছেন দাউদ।

দাউদ আর নোমানী একই কার্যালয়েই বসছেন বলে বৃহস্পতিবার একটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

এদিকে, তালেবানের প্রথম দফার শাসনামলেও কাবুলের মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন নোমনী।

চলতি বছরের আগস্ট মাসের মাঝামাঝি তালেবান দ্বিতীয় দফায় আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর দেশটির প্রেসিডেন্ট থেকে শুরু করে মন্ত্রী, আন্দোলনকর্মী এমনকি সাধারণ মানুষও আফগানিস্তান ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

তবে সাবেক মার্কিন নাগরিক দাউককে যথাযথ নিরাপত্তা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তালেবান। এরপরই আবর্জনা সংগ্রহ এবং পয়ঃনিষ্কাশনের মতো কাজগুলো নিরবচ্ছিন্নভাবে চলছে কী না তা নিশ্চিত করতে কাজে যোগ দেন দাউদ।

ক্ষমতাচ্যুত আফগান সরকারের সবচেয়ে প্রভাবশালী নেতা মনে করা হচ্ছে দাউদকে, যিনি সরকার পতনের পরও নিজ দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। ২০২০ সালে তাকে আফগানিস্তানের মেয়র হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়।

তিনি বলেন, দায়িত্ব এমন বিষয়, যা যেনতেন ভাবে ছুড়ে ফেলা যায় না।  এজন্যই অফিস করছেন তিনি। তবে তিনি তালেবানকে পছন্দ করেন না বলেও এক মার্কিন গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, এই শহরবাসীর সেবা করার জন্যই আমাকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। এখনো আমি এই শহরের জন্য কাজ করে যাচ্ছি।

উত্তর দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here