হোম আন্তর্জাতিক ওমিক্রন: বিপাকে অস্ট্রেলিয়াগামী আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীরা

ওমিক্রন: বিপাকে অস্ট্রেলিয়াগামী আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীরা

কর্তৃক স্টাফ রিপোর্টার
25 ভিউস

করোনা মহামারির শুরু থেকেই স্থবির হয়ে পড়েছে শিক্ষাখাত। দেশে দেশে মাসের পর মাস বন্ধ রয়েছে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এতে সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়েছে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীরা। তবে টিকাকরণের মাধ্যমে উন্নত দেশগুলো শিক্ষার দুয়ার খোলার চেষ্টা ও পরিকল্পনা করছে। কিন্তু এরই মধ্যে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে হানা দিয়েছে। ফলে আবারও আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের দীর্ঘদিনের আশা ভঙ্গ হতে চলেছে।

গত ১ ডিসেম্বরের আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য দুয়ার খোলার কথা ছিল অস্ট্রেলিয়ার। কিন্তু দেশটিতে করোনার নতুন ধরন ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় সে পরিকল্পনা পিছিয়ে গেছে। অস্ট্রেলিয়ায় আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীরা কবে যেতে পারবে তা নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা। এতে হতাশ হয়ে পড়েছেন অনেক শিক্ষার্থী।

করোনা মহামারির কারণে প্রায় ২০ মাস বন্ধ ছিল অস্ট্রেলিয়ার সীমান্ত। ভারতের গুরগাঁওয়ের ১৮ বছর বয়সী এক শিক্ষার্থী পড়াশোনার জন্য অস্ট্রেলিয়াকে বেছে নেওয়া জন্য এখন অনুশোচনায় ভুগছেন। চরম হতাশায় দিন কাটছে তার।

ডিসেম্বরের শেষ দিকে অস্ট্রেলিয়ায় উড়াল দেওয়া পরিকল্পনা ছিল জুটশির। কিন্তু বৃহস্পতিবার পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ায় ৭ জনের দেহে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন শনাক্ত হয়। তাই দেশটির সীমান্ত ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত বন্ধ রাখার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে তাদের ওপর ভরসার রাখতে পারছেন না জুটশি। কারণ এ সময়সীমা অস্ট্রেলিয়ান কর্তৃপক্ষ আরও বাড়াতে পারে। জুটশি জানান, যদি তারা পুরো ডিসেম্বর মাস সীমান্ত বন্ধ রাখে তাহলে সেটা হবে হতাশাজনক।

মেলবোর্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে মনোবিজ্ঞানে অধ্যয়নরত জুটশি বলেন, আমার অনেক বন্ধু ছিল যাদের এই সপ্তাহে অস্ট্রেলিয়ার জন্য নির্ধারিত ফ্লাইট বাতিল করতে হয়েছে।

 

দক্ষিণ আফ্রিকায় করোনাভাইরাসের নতুন ধরন শনাক্তের পরই দেশে দেশে তৈরি হয়েছে অচলাবস্থা। বিশেষ করে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার ফলে আবারও সব কিছু স্থবির হয়ে পড়েছে। বিভিন্ন উৎসব-আয়োজনের আকারও কমিয়ে আনা হচ্ছে। ফলে বড় পরিবর্তন আসতে যাচ্ছে বড় দিনের উৎসবেও। যুক্তরাজ্যের বড় বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো বড়দিনের পার্টি ছোট আকারে করার কথা জানিয়েছে। কোম্পানির মধ্যেই বিভাগভিত্তিক হবে এসব পার্টি। খবর আল জাজিরার।

ওমিক্রনের জেরে নতুন করে স্বাস্থ্য ঝুঁকি দেখা দিয়েছে বিভিন্ন দেশে। বড় উৎসবে জনসমাগমের কথা বিবেচনা করেই যুক্তরাজ্যে পার্টি কাট ছাট করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কারণ ওমিক্রনের ফলে তৈরি হয়েছে অনিশ্চয়তা।

যুক্তরাজ্যের বৃহত্তম কোম্পানি ন্যাটওয়েস্ট, আভিভা ও ডেলয়েট তাদের কর্মীদের জানিয়েছে, পার্টিতে অংশ নেওয়াটা নিজেদের ব্যক্তিগত পছন্দের ওপর নির্ভর করে। কেউ চাইলে পার্টিতে নাও অংশ নিতে পারবেন। এদিকে বড় বড় ইভেন্টের আয়োজকরা মনে করছেন বড়দিনের উৎসবের মাধ্যমে অর্থনীতি পুনরুদ্ধার করা সম্ভব হবে।

যুক্তরাজ্যের কর্মক্ষেত্রের ৫২ শতাংশ কর্মী ক্রিসমাস অফিস পার্টি না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কোভিড টেস্টিং কোম্পানি প্রেনেটিক্স দুই হাজার কর্মীর ওপর একটি সমীক্ষা চালিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে।

যুক্তরাজ্যের বিজ্ঞাপন সংস্থা এস৪ ক্যাপিটালের নির্বাহী চেয়ারম্যান স্যার মার্টিন সোরেল বলেন, করোনার নতুন ধরন শনাক্ত হওয়ার পর গত কয়েকদিনে অসংখ্য গ্রাহক তাদের পার্টি বাতিল করেছে।

ন্যাটওয়েস্ট তাদের প্রায় ৬০ হাজার কর্মীকে পার্টিতে আসার আগে করোনা পরীক্ষার আহ্বান জানিয়েছে। ইনস্যুরেন্স কোম্পানি আভিভাও তাদের কর্মীদের করোনা পরীক্ষার কথা জানিয়েছে। যুক্তরাজ্যের প্রধান বিনিয়োগ ব্যাংকগুলো বড়দিন উপলক্ষে বড় কোনো আয়োজন করবে না বলে জানা গেছে।

যুক্তরাজ্যের বাণিজ্যমন্ত্রী জর্জ ফ্রিম্যান বলেন, যেসব কোম্পানির কর্মী খুবই কম তাদের জন্য ঝুঁকি কম। অন্যদিকে যেসব কোম্পানির শত শত কর্মী রয়েছেন তাদের জন্য বড় পার্টির আয়োজন মঙ্গলজনক হবে না।

যুক্তরাজ্য সরকার জানিয়েছে, ওমিক্রন ছড়িয়ে না পড়লে বড়দিনের পার্টি বাতিল করার প্রয়োজন নেই। সবাইকে করোনার বুস্টার ডোজ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে তারা।

 

জুটশি প্রায় এক লাখ আন্তর্জাতিক ছাত্রের মধ্যে একজন। তারা সবাই ২০২০ সালের মার্চ মাসে দেশটির সীমান্ত বন্ধ করার পর থেকে অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশের জন্য মরিয়া হয়ে অপেক্ষা করছেন। কেউ কেউ তাদের পড়াশোনা পিছিয়ে দিয়েছে, অন্যরা অনলাইনে পড়াশুনা করেছে। ওমিক্রনের কারণে সীমান্ত খোলার সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসায় আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের মধ্যে উদ্বেগ, হতাশা এবং ক্ষোভ বাড়ছে।

 

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন নিয়ে আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তিনি সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে আমেরিকানদের টিকা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। দক্ষিণ আফ্রিকায় আবিষ্কার হওয়া করোনার নতুন ধরন দেশে দেশে ছড়িয়ে পড়ার পর দেশটির নাগরিকদের উদ্দেশ্যে সোমবার হোয়াইট হাউজে এক বক্তৃতায় এ কথা বলেন তিনি। খবর আল-জাজিরার।

বাইডেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা ভ্যাকসিন নির্মাতাদের সঙ্গে পরামর্শ ও ওমিক্রন মোকাবিলায় প্রস্তুতি নিচ্ছেন। যুক্তরাষ্ট্র আপাতত লকডাউন বা আরও ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা অবলম্বন না করে ওমিক্রনের সম্ভাব্য বিস্তার রোধে কাজ করছে।

তিনি বলেন, নতুন ধরনটি উদ্বেগের তবে আতঙ্কের নয়। দুই ডোজ টিকা নেওয়ার পরও যদি কেউ ভয়ে থাকেন তাহলে বুস্টার ডোজ নেওয়ার পরামর্শ দেন। যারা টিকা এখনো নেয়নি তাদের দ্রুত টিকা নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

প্রেসিডেন্ট বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ সংক্রামক রোগবিশেষজ্ঞ অ্যান্থনি ফাউসির আশা করছেন, বর্তমানের টিকাগুলো ওমিক্রনের বিরুদ্ধেও কাজ করবে। আর বুস্টার ডোজ সুরক্ষা বাড়াবে। কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা-দ্বিধা ছাড়াই বিজ্ঞানসম্মত ও যথাযথ জ্ঞানের মাধ্যমে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার কথাও জানান বাইডেন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কাছে গত ২৪ নভেম্বর প্রথমবারের মতো দক্ষিণ আফ্রিকায় ওমিক্রন করোনাভাইরাস শনাক্তের খবর পৌঁছায়। এরপর নেদারল্যান্ডস, ডেনমার্ক, অস্ট্রেলিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে তা ছড়িয়ে পড়ে। এর জেরে অনেক দেশ সীমান্ত বন্ধসহ ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

এর আগে করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরন সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়তে পারে এবং কিছু অঞ্চলে এটি ‘মারাত্মক পরিণতি’ ডেকে আনতে পারে বলে হুঁশিয়ারি দেয় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

সোমবার (২৯ নভেম্বর) জাতিসংঘের স্বাস্থ্য সংস্থাটি এর ১৯৪ সদস্য দেশকে সম্ভাব্য সংক্রমণের ঢেউ ঠেকাতে বিশেষ গ্রুপের লোকদের মধ্যে টিকাদানের হার বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছে। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের পরিকল্পনা ঠিকঠাক রয়েছে কিনা সেটিও নিশ্চিত করতে বলেছে তারা।

চীনের শিক্ষার্থী কারেন গান। তিনি চীনের নানিং শহরে তার বাড়ি থেকে অস্ট্রেলিয়ায় যাওয়ার অপেক্ষায় অনলাইনে পড়াশোনা করছেন। বার বার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করায় তিনি অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসনের উপর আস্থা হারিয়েছেন।

মহামারির আগে অস্ট্রেলিয়া ছিল শিক্ষার জন্য বিশ্বের তৃতীয়-জনপ্রিয় গন্তব্য। ২০১৯ সালে দেশটির শিক্ষাখাত অর্থনীতিতে ৩৭ দশমিক ৬ বিলিয়ন অস্ট্রেলিয়ান ডলার অবদান রেখেছে। কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে দুই লাখ ২৪ হাজার। কিন্তু করোনা মহামারির কারণে সব কিছুই স্থবির হয়ে পড়েছে।

০ মন্তব্য
0

সম্পর্কিত পোস্ট

মতামত দিন